কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

ব্যক্তিগত জীবনে আমি একজন আইনজীবী,প্র্যাকটিস করতে পারি না!প্রধানমন্ত্রীর পর ফের মুখ্যমন্ত্রীর হাতে উদ্বোধন সার্কিট বেঞ্চের

নিজস্ব প্রতিনিধি: ৮ই ফেব্রুয়ারির পর ফের ৯ই মার্চ৷ প্রধানমন্ত্রীর পর মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে ফের উদ্বোধন হল কলকাতা হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের৷ বহু দিনের আশাপূরণ হল উত্তরবঙ্গবাসীর৷ সার্কিট বেঞ্চ জলপাইগুড়ির মুকুটে নতুন পালক বলে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷শনিবার জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি-সহ একাধিক বিচারপতির সামনে অনুষ্ঠানে উপস্থিত আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী  বলেন, “আমিও আপনাদের গোত্রেরই। ব্যক্তিগত জীবনে আমি একজন আইনজীবী। কিন্তু সুযোগ পাই না। তাই প্র্যাকটিস করতে পারি না।”

এ দিন সার্কিট বেঞ্চ উদ্বোধনের মঞ্চ থেকে আইনজীবীদের পরামর্শও দেন মমতা। বলেন, “একজন ল’ইয়ার একসঙ্গে এত কেস নিয়ে ফেলেন যে সামলাতে পারেন না। ভাবুন তো যাঁরা আসেন, তাঁরা কত কষ্ট করে পয়সা জোগাড় করেন। আমরা বলি কোর্টে ছুঁলে আঠারো ঘা। কত মানুষের ঘটিবাটি বিক্রি করে দিতে হয় মামলা লড়তে।”এর আগে জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন নিয়ে কেন্দ্র রাজ্য তরজা ছিল৷ এর আগে চলতি বছরের ৮ই ফেব্রুয়ারি সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন করে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ মানুষের দীর্ঘ দিনের চাহিদা পূরণ না হওয়ায় সেই সভা থেকেই বাম-কংগ্রেস সহ বর্তমান তৃণমূল সরকারকে তোপ দাগেন প্রধানমন্ত্রী৷ গত মাসে প্রধানমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফরের আগেই কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট সার্কিট বেঞ্চে সিলমোহর দিয়ে দিয়েছিল। নরেন্দ্র মোদী এসে তা উদ্বোধনও করেছিলেন। কিন্তু সে সময় মুখ্যমন্ত্রী ব্যাপক ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। রাজ্য সরকার বা হাইকোর্টের কাউকে না জানিয়ে সেই উদ্বোধনকে মমতা বলেছিলেন, “বর নেই, কনে নেই, বাইরে থেকে এসে ব্যান্ডপার্টি বাজাচ্ছে।” তার পরেই যদিও হাইকোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল জানিয়েছিলেন ৯ মার্চ হবে সার্কিট বেঞ্চের উদ্বোধন। কিন্তু তখন জল্পনা তৈরি হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রীর থাকতে পারা নিয়ে। কারণ অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন মার্চের প্রথম সপ্তাহেই হয়তো ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা করে দেবে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। তা হলে নির্বাচন বিধির জন্য মুখ্যমন্ত্রী থাকতে পারতেন না। কিন্তু তা হয়নি।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।