প্রথম পাতা

বিজেপি’কে অক্সিজেন জোগাচ্ছে কংগ্রেস, রাহুলের পাল্টা সভায় সরব শুভেন্দু

নিজস্ব প্রতিনিধি— মালদায় বিজেপি’কে অক্সিজেন জোগাচ্ছেন কংগ্রেস নেতারা। দিনে কংগ্রেস, রাতে বিজেপি। কংগ্রেসকে এভাবে চঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূলের জেলা পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। সোমবার চাচোলের কলমবাগান মাঠে দলীয় প্রার্থী মৌসম নূরের সমর্থনে জনসভা করেন শুভেন্দু। গত ২৩ মার্চ এই মাঠেই সভা করে তৃণমূলের কঠোর সমালোচনা করে গিয়েছিলেন কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহুল গান্ধি। সেই সভারই পাল্টা সভা করেন তিনি। উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, দুই প্রাক্তন মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দু চৌধুরী ও সাবিত্রী মিত্র, জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল প্রমুখ।

গত ২৩ মার্চ হেলিকপ্টার নিয়ে চাচোলে সভা করতে এসেছিলেন রাহুল। একইভাবে হেলিকপ্টার করে এদিন শুভেন্দু অধিকারীও চাচোলে জনসভা করতে আসেন। রাহুলের সভাতে উপচে পড়েছিল মাঠ। এদিনের শুভেন্দুর সভায় ছিল একই ছবি।

শুভেন্দু এদিন বলেন, “আমাদের একটাই লক্ষ্য কেন্দ্রে বিজেপি সরকারকে সরানো। কিন্তু মালদায় কংগ্রেস নেতারা কি করলেন, রাহুল গান্ধিকে নিয়ে সভা করলেন। এতে কার শক্তি বৃদ্ধি হবে। সাম্প্রদায়িক শক্তিকে অক্সিজেন দিচ্ছে কংগ্রেস। এই সভাটি হবিবপুরে করতে পারত কংগ্রেস। বলাবাহুল্য, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে হবিবপুর এলাকায় ব্যাপক শক্তি বৃদ্ধি ঘটিয়েছে বিজেপি। সেখানে একাধিক গ্রামপঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি ও জেলা পরিষদের আসন দখল করেছে বিজেপি। তবে সেই শক্তি বৃদ্ধির কথা অবশ্য মুখে আনেননি শুভেন্দু।

শুভেন্দু বলেন, কলকাতায় ব্রিগেড সমাবেশে সোনিয়া গান্ধি প্রতিনিধি পাঠিয়ে মোদির বিরুদ্ধে একজোটের বার্তা দিয়েছিলেন। অথচ সেই কংগ্রেসের রাহুল গান্ধি চাচোলের কলমবাগানে এসে তৃণমূলকে গালমন্দ করে গিয়েছিলেন। তবে মালদা আর সেই জায়গায় নেই। জেলা এখন তৃণমূলের দুর্গে পরিণত হয়েছে। এখানে যিনি বিজেপি প্রার্থী হয়েছেন তিনি হার্মাদ দলের বিধায়ক ছিলেন। সেই হার্মাদকে প্রার্থী করেছে বিজেপি। বিজেপি প্রার্থী যখন প্রচারে যাবেন তখন মহিলাদের সামনে না আসার আহ্বান জানান তিনি।

এদিন উত্তর মালদার পর দক্ষিণ মালদা লোকসভা কেন্দ্রের বৈষ্ণবনগরে তৃণমূল প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেনের সমর্থনে জনসভা করেন শুভেন্দু অধিকারী। সেখানেও তিনি কংগ্রেস ও বিজেপি’কে একহাত নেন। শুভেন্দু বলেন, “মালদায় আমরা দু’টি আসনই জিতব। এখানে আমাদের ৪৩ শতাংশ ভোট রয়েছে। কংগ্রেসের রয়েছে ২৩ শতাংশ এবং বিজেপি’র ২০ শতাংশ। ৩ এপ্রিল তৃণমূলের প্রার্থীরা মনোনয়ন জমা দেবেন।’ এদিনের জনসভায় শুভেন্দু ছাড়াও বক্তব্য রাখেন তৃণমূল প্রার্থী মৌসম নূর। তিনি বলেন, এই কেন্দ্র থেকে আমি পরপর নির্বাচিত হয়ে এসেছি। মানুষ আমাকে দু’বার আশীর্বাদ করেছে। এবারও আমাকে উত্তর মালদার মানুষ জয়ী করবে। কারণ তাদের আপদে-বিপদে সবসময় পাশে রয়েছি।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।