জেলা প্রথম পাতা

নির্বাচনের মাঝেও দোলের উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়েছে জেলাজুড়ে

নিজস্ব প্রতিনিধি:  আসন্ন ১৭ তম লোকসভার দিনক্ষণ ঘোষনা হয়ে গিয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলি রাঙ্গিয়ে ওঠার সাথে সাথে দোলের আনন্দে মেতে উঠে জেলার মানুষ।  

সমুদ্র থেকে শিল্পশহর সর্বত্রই  ছড়িয়ে পড়েছে দোলের উন্মাদনা। দোল বলতে এখন শুধুই কবিগুরুর শান্তিনিকেতন  নয়। জেলার বিভিন্ন প্রান্তে শান্তিনিকেতনের পরিবেশে দোলের আনন্দে মেতে উঠেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। শান্তিনিকেতনের মত পলাশের ছোঁয়া না থাকলেও আম্র মুকুলের অপরুপ পরিবেশের মধ্যে অনুষ্ঠিত  হচ্ছে  মহিষাদল রাজ বাড়ির আম্রকুঞ্জে ” মহিষাদল বসন্ত উৎসব”। মহিষাদল প্রেস কর্নারের আয়োজনে  আগামী ২১ মার্চ বৃহস্পতিবার  প্রভাতফেরি  মধ্যদিয়ে ১০ ম মহিষাদল বসন্ত উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। মহিষাদল বসন্ত উৎসব এখন রাজ্যের অন্যতম উৎসবে পরিনত হয়েছে।কারন এই  উৎসবে রাজ্যের বিভিন্ন জেলার  মানুষ  সামিল হন। শুধু আবির খেলা বা নাছ- গান নয়।  গুণী ব্যক্তিদের কর্মকান্ড সকলের সামনে তুলে ধরা ও তাদের সম্মানিত  করার ব্যবস্থা থাকছে। হাতে মাত্র একটা দিন। সময় নষ্ট না করেই স্থানিয় সাংস্কৃতিক দলের প্রতিনিধিরা  মহিষাদল রাজ বাড়ির আম্রকুঞ্জে  বসন্ত উৎসবের তালিমে সামিল হয়েছে। নাচ, গান, আবৃতি,  গুণীজন সংবর্ধনার পাশাপশি দোলের দিন দোলের ছবি তিলে পুরস্কার  জিতে নেওয়ার ব্যবস্থা থাকছে। থাকছে বসন্তের ফোটো গ্যালারি। 

 মহিষাদল প্রেস কর্নারের বসন্ত উৎসবের পাশাশি মেচেদা  শান্তিপুর বন্ধু সংঘ বসন্তের আনন্দে সামিল হয়ে পড়েছেন। তাদের উদ্যোগে গত ১৫  মার্চ থেকে ১৭ মার্চ তিনদিনের  ১০ ম বর্ষের বসন্ত উৎসবের আয়োজন করা হয়। সেখানেও গান, নাচ,  আবৃতির পাশাপাশি  গুণীজন সংবর্ধনার ব্যবস্থা করা হয়। ১৬ ই মার্চ  তমলুক রাখাল মেমোরিয়াল  ফুটবল  ময়দানে তমলুক জার্নালিস্ট  রিক্রিয়েশন ক্লাবের উদ্যোগে বসন্ত উৎসব পালিত হয়। নয় নয় করে তারাও ৬ পেরিতে ৭ পা দিল। রংবাহারি  আবিরে রাঙ্গিয়ে আপন করে দুপুর থেকে রাত্রি পর্যন্ত নানা অনুষ্ঠানে মেতে ওঠেন তমলুকের মানুষজন। জেলা বইমেলার সাথেই বসন্তের উৎসবে মাতোয়ারা  হতে সামিল হয়েছিল হাজার হাজার মানুষ। নাটশাল কুম্ভচক খুশি সংঘের আয়োজনে ২০ মার্চ থেকে ২২ মার্চ পর্যন্ত দোলপূর্নিমার রথযাত্রাও মিলন উৎসবের আয়োজন করা হয়ে। তাদের ১২ তম বর্ষে প্রস্তুতি তুঙ্গে।   প্রিয়জনের সাথে হাতে হাত রেখে বসন্তের বিকেলে দিঘার সমুদ্রে সময় কাটাতে কার না ভালো লাগে। তার সাথে যদি রঙ্গিন  আবিয়ে রাঙ্গিয়ে  দেওয়ার ব্যবস্থা থাকে তাহলে কেমন হয়?। ভাবছেন তো?।  পর্যটকদের কথাভেবেই গত বছর থেকে দিঘার সৈকতে “রং উৎসব” এর আয়োজন করা হয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর রিপোর্টার্স  ফোরামের উদ্যোগে। আগামী ২৪ শে মার্চ রবিবার দিঘার বিশ্ববাংলা পার্কের সামনেই আয়োজন করা হয়েছে দিঘার সৈকতে “রং উৎসব”। নাছ, গান, আবৃতির পাশাপশি থাকছে গুণীজন  সংবর্ধনা,  দুঃস্থ ছাত্রছাত্রীদের  পাঠ্য সামগ্রিক বিতরণ ও সাংস্কৃতিক  অনুষ্ঠান।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।