কলকাতা জেলা প্রথম পাতা

দোলের পরেই প্রচারে ঝাঁপাবেন মমতা! ২টি আসনে ৪টি জনসভা করেই উত্তরবঙ্গ থেকে ১৯শের লড়াই শুরু করবেন তৃণমূল সুপ্রিমো

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেশে লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজিয়ে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। ইতিমধ্যেই রাজনীতির ময়দানে নেমে পড়েছে শাসক-বিরোধী সবপক্ষই। রাজ্যের ৪২টি আসনে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে বিরোধীদের প্রথম থেকেই চাপে রেখেছে তৃণমূল। হাতে সময় আর বেশী নেই। তাই আর সময় নষ্ট না করে পুরোদমে প্রচারে নেমে পড়তে চাইছে তৃণমূল। বুধবার শাসকদলের প্রার্থী পরিচিতির সাংবাদিক বৈঠকেই তৃণমূল সুপ্রিমো জানিয়েছিলেন, দোলটা শান্তিতে মিটিয়েই পুরোদমে শুরু করবেন লোকসভা ভোটের প্রচার। তৃণমূল সূত্রের খবর, ২৫ মার্চ থেকে রাজ্যজুড়ে প্রচারে নামতে চলেছেন খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২৫, ২৬ এবং ২৭ মার্চ উত্তরবঙ্গের দুই কেন্দ্র আলিপুরদুয়ার এবং কোচবিহারে চারটি জনসভা করবেন তৃণমূলনেত্রী।

১১ এপ্রিল প্রথম দফায় ভোটগ্রহণ হবে এই দুই কেন্দ্রে। স্বাভাবিক ভাবেই সেখান থেকেই প্রচার শুরু করছেন নেত্রী। এ বার কোচবিহারে প্রার্থী বদল করেছে তৃণমূল। পার্থপ্রতিম রায়ের বদলে সেখানে প্রার্থী করা হয়েছে পরেশ অধিকারীকে। আলিপুরদুয়ারে যদিও গতবারের জেতা সাংসদ দশরথ তিরকেকেই টিকিট দিয়েছেন মমতা। এমনিতেই কোচবিহার জেলা গত কয়েক বছরে শাসক দলের ভিতরকার ডামডোলে খানিকটা অশান্ত। কিন্তু ভোটের আগে সেইসব যাতে আর মাথাচাড়া দিয়ে না ওঠে সেই ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে চাইছে তৃণমূল নেতৃত্ব।  উনিশের চ্যালেঞ্জিং ভোটে সে সব করলে যে ফল ভাল হবে না তা জানেন স্বয়ং নেত্রীও। তাই কোচবিহারের প্রার্থী ঘোষণার সময় গত মঙ্গলবার মমতা বলেছিলেন, “পার্থ যদি দলে থাকে তাহলে ওঁকে আমরা অন্য কাজে ব্যবহার করব।” কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ার, এই দুটি আসনকেই এ বার টার্গেট করেছে বিজেপি। ইতিমধ্যেই জানা গিয়েছে প্রথম দফার ভোটের আগে রাজ্যে এসে কর্মীসভা করবেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।