দেশ প্রথম পাতা

জম্মু বাস স্ট্যান্ডে বিস্ফোরণ: টিফিন বাক্স করেই গ্রেনেড লুকিয়ে রাখে নবম শ্রেণির ছাত্র!

নিজস্ব প্রতিনিধি : বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা নাগাদ আচমকাই গ্রেনেড বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে জম্মুর একটি সরকারি বাস স্ট্যান্ড। বাসস্ট্যান্ডে গ্রেনেড হামলায় হামলাকারী গ্রেনেডটি লুকিয়ে রেখেছিল একটি টিফিন বাক্সের মধ্যে। ওই টিফিন বাক্সটি আবার রাখা হয়েছিল চালের বস্তার ভেতরে। নিহত হন দুই স্থানীয় যুবকের। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৩০ জন।

এই হামলার ৫ ঘণ্টার মধ্যেই সন্দহভাজন হিসেবে বছর পনেরোর এক কিশোরকে আটক করে জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ। সূত্রের খবর, পুলিসের কাছে নবম শ্রেণির ওই ছাত্র স্বীকার করেছে ইউটিউবে ভিডিও দেখে সে গ্রেনেড বিস্ফোরণের কায়দা শিখেছিল। জেরায় ওই কিশোর জানিয়েছিল, কুলগামের হিজবুল কম্যান্ডার তাকে বাসস্ট্যান্ডে গ্রেনেড ছুড়তে বলেছিল। এই তথ্যের পরেই ফের প্রকাশ্যে এল আরও এক বিস্ফোরক তথ্য।

জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশ জানিয়েছে, ক্লাস নাইনের এই পড়ুয়া টিফিন বাক্সে করে নিয়ে এসেছিল গ্রেনেড। শুষ্ক বরফ (ড্রাই আইস) দিয়ে ভর্তি ছিল ওই লাঞ্চ বক্স। যাতে কেউ বুঝতে না পারে। শক্ত করে আটকানো ছিল মুখও। যাতে কোনওভাবেই আশেপাশের কেউ টের না পায়। জেরায় ওই কিশোর আরও জানিয়েছে যে, ইউটিউব দেখেই গ্রেনেড বিস্ফোরণের কৌশল শিখেছিল সে।

দক্ষিণ কাশ্মীরের কুলগামের বাসিন্দা এই কিশোর। তাকে বৃহস্পতিবার জম্মু থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে নাগ্রোটার কাছে একটি পুলিশ চেকপয়েন্ট থেকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, হামলার পর বাড়ি পালানোর চেষ্টা করছিল ওই কিশোর। সেই সময়েই তাকে পাকড়াও করে পুলিশ। 

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে জম্মু ও কাশ্মীরের আইজি এম কে সিনহা জানান, সিসিটিভির ফুটেজ, প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণ থেকে ইয়াসিরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে তার দোষ কবুল করেছে। কুলগাম জেলা হিজবুল কমান্ডার ইয়াসিরকে ওই কাজ করার দায়িত্ব দিয়েছিল। উল্লেখ্য, গত মে মাস থেকে এনিয়ে তিনবার জম্মু বাসস্ট্যান্ডে গ্রেনেড হামলা হল।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।