দেশ প্রথম পাতা

জইশঘাঁটিতে মৃতের সংখ্যা জানাবে সরকার, প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমন

নিজস্ব প্রতিনিধি : বালাকোটে কত সন্ত্রাসবাদীর মৃত্যু হয়েছে, সেই সংখ্যা জানতে চায় বিরোধীরা। অথচ নিহতের সংখ্যা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা। তা নিয়ে বিরোধীদের তোপের মুখে মোদী সরকার। কিন্তু এই প্রশ্নে সরকার  যে নির্দিষ্ট ভাবে কিছু বলবে না, তা কার্যত স্পষ্ট  করে দিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমন।

মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সামনে কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমন বলেন, ‘বিদেশ সচিব যা এ বিষয়ে যা জানিয়েছেন, সেটাই সরকারের বক্তব্য।’ 

মঙ্গলবার সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন নির্মলা সীতারমন। সেখানে বায়ুসেনার প্রত্যাঘাত নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই তা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। মৃত জঙ্গির সংখ্যা নির্দিষ্ট ভাবে জানতে চাইলে বলেন, গত ২৬ ফেব্রুয়ারি এয়ার স্ট্রাইকের দিন বিদেশ দফতরের পক্ষ থেকে যে বিবৃতি দেওয়া হয় তাতে বলা হয়েছিল, ভারতীয় বায়ু সেনার এয়ার স্ট্রাইকে বড় সংখ্যায় জইশ সন্ত্রাসবাদী, কমান্ড্যার ও আত্মঘাতী সন্ত্রাসবাদীর মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু সেখানেও সংখ্যা নিয়ে তা কোন দিশা ছিল না। এদিন নির্মলা সীতারমন সেই বক্তব্যেই অটুট রইলেন।কিন্তু  বায়ুসেনার প্রত্যাঘাতের পর ভারতের বিদেশ সচিব বিজয় গোখেলের দেওয়া যে বিবৃতির উল্লেখ করেছেন নির্মলা সীতারমন, তাতে নির্দিষ্ট করে কোনও সংখ্যা বলা হয়নি। 

১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় হামলার জবাবে ২৬ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে পাকিস্তানে ঢোকে ভারতীয় বায়ুসেনা এয়ার স্ট্রাইক চালায় পাকিস্তানের বালাকোটে। এরপরই দাবি ওঠে, সেই স্ট্রাইকে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৩৫০ জন সন্ত্রাসবাদীর। কিন্তু আন্তর্জাতিক নানা সংবাদমাধ্যম সেই দাবিকে নস্যাৎ করে দেয়। কেন্দ্রকে চাপে ফেলে সত্যতার দাবি তোলে বিরোধীরা। 

অন্য দিকে বায়ুসেনা ও কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে নির্দিষ্ট করে কিছু না বলায়, জঙ্গি মৃত্যু নিয়ে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে। গুজরাতে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে বায়ুসেনার অভিযানে ২৫০ জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে বলে সম্প্রতি ঘোষণা করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। কিন্তু সরকার এবং বায়ুসেনার তরফে যখন নির্দিষ্ট কিছু বলা হয়নি, তিনি এই হিসাব পেলেন কোথা থেকে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন বিজেপি বিরোধী শিবির। লোকসভা নির্বাচনের আগে বায়ুসেনার এই অভিযান আসলে বিজেপির নির্বাচনী রণকৌশল, এমন অভিযোগও উঠে এসেছে।

এরই মধ্যে বায়ু সেনা প্রধানকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ‘লাশের সংখ্যা গোনা বায়ু সেনার কাজ নয়। মিশন যদি টার্গেটে না থাকত, তাহলে পাকিস্তান পালটা আক্রমণে কেন আসত?’

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।