জেলা প্রথম পাতা

কে শোনে কার কথা! প্রশাসনের তৎপরতাতেও কমছে না যাত্রীবাহী গাড়ির ছাদে ঝুঁকির যাত্রা

নিজস্ব প্রতিনিধি: যাত্রীবাহী কোন গাড়ির ছাদে ভ্রমণ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।তবে কে শোনে কার কথা।এখনও অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে  রীতিমতো বাদুর  ঝোলার মত অনেকে যাতায়াত করছে গাড়িতে। আইন কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে তাঁরা মেতে উঠেছে এই  ঝুঁকির যাত্রায়। তবে এর জন্য প্রশাসনিক  তৎপরতা বেশ  কিছু জায়গায় লক্ষ্য করা গিয়েছে। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বাসের ছাদে যাত্রী তোলার জন্য প্রশাসন কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে।কিন্তু জেলার স্তরে ট্রেকার ও ম্যাজিক গাড়ির ছাদে যাত্রী বোঝাই করে চলাচল করার  চিত্রটা বদলায় নি। একই রয়ে গেছে।

       হাওড়া জেলার আমতা রামচন্দ্রপুর থেকে বড়গাছিয়া পর্যন্ত চলে ম্যাজিক গাড়ি । জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ম্যাজিক গাড়ির ছাদে উঠে দিনের পর দিন চলেছে নিত্যযাত্রীরা।  আমতা থেকে হাওড়া এই রুটটি বহু পুরাতন, এক্সপ্রেস বাস থেকে শুরু করে লোকাল বাস, মিনিবাস সবকিছুই চলেছে আমতা থেকে হাওড়া। প্রায় বারো বছর হয়ে গেল এই রুটে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। প্রশাসনকে নতুন করে এই রুটে বাস চালানোর উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। আমতা থেকে মুন্সিরহাট,ডোমজুড় ও বড়গাছিয়া যেতে গেলে অটো, টোটো ম্যাজিকে করে বেশি পয়সা দিয়ে নিত্য দিন সাধারণ মানুষকে যাতায়াত করতে হয়। রামচন্দ্রপুর থেকে একমাত্র ভরসা ম্যাজিক গাড়ি।  কলেজ ছাত্রী দীপালি পাল জানায়,  বড়গাছিয়া থেকে আমতায় সে রোজ কলেজ যায় ।বেশির ভাগ সময় তাঁকে  ঝুলে ঝুলে যাতায়াত করতে হয়।বছর পঞ্চাশের অচিন্ত্য দে জানান,এই রুটে যখন থেকে বাস বন্ধ হয়ে গেছে ম্যাজিক গাড়িয় আমাদের একমাত্র ভরসা। ব্যস্ত মুহূর্তে সাধারণ মানুষকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে  এইভাবে যেতে বাধ্য হতে হয়।যাত্রীদের গাদাগাদি করে যাওয়া যেন গা সওয়া হয়ে দাঁড়িয়েছে।সুখদেব প্রামাণিক নামে এক যাত্রী বলেন,এই রুটের ম্যাজিক গাড়ি ছাদে ও ঝুলে ঝুলে যে ভাবে যাত্রী নিয়ে যায়, তাতে যেকোনোও সময় বিপদ হতে পারে।  যেকোনো মুহূর্তে বড়ো দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।তাই ট্রেকার বা ম্যাজিকের ছাদে যাত্রী তোলা ঠেকাতে সড়ক টহলদারি পুলিশকে নজরদারি বাড়ানো দরকার বলে তিনি মনে করেন। তবে পুলিশ প্রশাসন এ সম্পর্কে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানায়।পাশাপাশি এই নিয়ে আরও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে তাঁরা জানিয়েছেন।

 

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।