প্রথম পাতা

উত্তর মালদার প্রার্থী নিয়ে বিজেপি’তে ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিনিধি— প্রার্থীপদ নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ঘোষণা করলেন মালদার দুই লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীর নাম। আর এরপর থেকে জেলার উত্তরের প্রার্থী নিয়ে নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। যদিও দক্ষিণের প্রার্থী নিয়ে সেভাবে বিরোধিতার কোনও ছাপ জেলা বিজেপি’র মধ্যে দেখা যায়নি। সম্প্রতি হবিবপুরের বিধায়ক খগেন মুর্মু সিপিএম ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেন। সেই খবর এসে পৌঁছতেই জেলার অন্দরে ঘুরতে থাকে উত্তর মালদা কেন্দ্রের প্রার্থী হচ্ছেন খগেন মুর্মু। আর এই নিয়ে নিচুতলার বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছিল। জেলা নেতৃত্বও তাঁর প্রার্থী হওয়া নিয়ে প্রকাশ্যেই মুখ খুলেছিলেন। সেইসময় জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র বলেছিলেন, খগেন মুর্মু উত্তরের প্রার্থী হবেন মৌসম নূরকে জেতানোর জন্য। এই নিয়ে প্রশ্নও তোলেন তিনি। তবে জেলা সভাপতি ও দলের সৈনিক হিসেবে ইচ্ছা না থাকলেও অনেক কিছু করতে হয়। উত্তর ও দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রের প্রার্থী ঘোষণা হতেই ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে সঞ্জিত মিশ্র বলেন, কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব যা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সেই মতো কাজ হবে। নিচুতলায় বোঝানো হবে। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশ অনুযায়ী দলীয় কর্মীদের নিয়ে প্রচার করা হবে। যদিও প্রার্থী ঘোষণার পর উত্তর মালদা বিজেপি কর্মীরা ক্ষোভে ফুসছেন। তাঁদের দাবি, খগেন মুর্মুর উত্তর মালদা কেন্দ্রের মানুষের সঙ্গে জনসংযোগ যথেষ্ট কম। পাশাপাশি তিনি সিপিএমে থাকাকালীন যে সমস্ত কাজ করেছিলেন তা মোটেই উত্তরের মানুষের জন্য করেননি। ফলে মানুষের মধ্যে যথেষ্ট ক্ষোভ রয়েছে। সেক্ষেত্রে যথেষ্ট ব্যাকফুটে দল। কর্মীরা কে কতটা তার হয়ে প্রচার করবে সেটাই এখন প্রশ্নের মুখে। অন্যদিকে দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রে প্রার্থী হয়েছেন শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী। তাকে জেলা বিজেপি নেতৃত্ব মেনে নিয়েছেন। বিজেপি নেতৃত্বের দাবি দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রে যোগ্য প্রার্থী দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। দক্ষিণ মালদার প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী বলেন, তার কেন্দ্রে গঙ্গা ভাঙন ও ভিনরাজ্যের শ্রমিকের কাজে যাওয়া মানুষের বসবাস বেশি। এলাকায় কোনও কর্মসংস্থান নেই। মানুষ সমস্তটাই দেখেছে। এবার মানুষ দক্ষিণ মালদাতে বিজেপি’কে চাইছে। তাঁদের জন্য লড়াই করবেন। উত্তর মালদা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী খগেন মুর্মু বলেন, যেসব ক্ষোভ-বিক্ষোভের কথা বলা হচ্ছে, তা সম্পূর্ণ বিরোধী দলের চক্রান্ত। বিজেপি’র মধ্যে কোনও ক্ষোভ-বিক্ষোভ নেই। এসব ভুলে সবাই তার হয়ে প্রচার শুরু করেছে। তৃণমূল কংগ্রেস ও কংগ্রেসের কিছু কর্মীরা বিজেপি সম্বন্ধে মিথ্যা বার্তা দিচ্ছে মানুষকে। মানুষ ভোটবাক্সে এর যোগ্য জবাব দেবে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।