Uncategorized

অসহায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের পাশে দাঁড়াতে অশোকনগরে মুখ্যমন্ত্রীর নামাঙ্কিত বৃদ্ধাশ্রম

নিজস্ব প্রতিনিধি- জীবনের সবটুকু দিয়ে দেওয়ার পর শেষ বয়সে নিজের বাসস্থানে একটু আরাম করে কাটানোর ইচ্ছে সকলেরই থাকে। কিন্তু বাস্তবে তা অনেক সময়েই সফল হয় না। আর সেই সকল-অসফল মানুষদের পাশে দাঁড়াতে বর্তমান যুগে নানা অঞ্চলেই দেখা মেলে বৃদ্ধাশ্রমের। এবার সেইরকমই এক বৃদ্ধাশ্রমের জন্ম হল উত্তর ২৪ পরগনার অশোকনগরে। সম্প্রতি এলাকার সাংসদের হাত ধরে পথ চলা শুরু হয় অশোকনগর কল্যাণগড় পুরসভার ১৮নং ওয়ার্ডে। আর ঘটনাক্রমে এই বৃদ্ধাশ্রমের নামকরণ করা হয়েছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে। আর একাজে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন এলাকার সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। প্রসঙ্গত, এই কাজের মধ্যে দিয়ে ফের একবার সাংসদের মানবিক দিক প্রত্যক্ষ করল বারাসাত লোকসভার বাসিন্দারা। প্রকাশ, কিছুদিন আগেই স্কুলের জুতো কিনে দিয়ে মাদ্রাসার ছাত্রীদের শিক্ষাঙ্গনে যাওয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন তিনি। আর এবার অসহায় প্রবীণ মানুষদের পাশে দাঁড়াতে নির্মাণ করলেন বৃদ্ধাশ্রম। আর এই আশ্রমের নাম রাখলেন দলনেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামানুসারে ‘মমতালয়। আর সাংসদের এহেন উদ্যোগে মুখের হাসি চওড়া হয়েছে এলাকার প্রবীণ মানুষদের। সূত্রের খবর, অশোকনগর-কল্যাণগড় ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকার প্রবীণ মানুষদের সুবিধার জন্য একটি বৃদ্ধাশ্রমের পরিকল্পনা ছিল বারাসত লোকসভার সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদারের। সেই মত অশোকনগর কল্যাণগড় পুরসভার সাথে কথা বলেন সাংসদ। স্থির হয়, ওই পুর এলাকার ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে ৫০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে একটি বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণ করা হবে। আর এই বিপুল খরচের পুরো অর্থটাই সাংসদ তার নিজ সাংসদ তহবিল থেকে বরাদ্দ করেন। এরপর অত্যন্ত দ্রুততার সাথে এই আশ্রম নির্মাণের কাজ শুরু হয়। সম্প্রতি ‘মমতালয় নামে বৃদ্ধাশ্রমটির উদ্বোধন করেন সাংসদ। এই কর্মসূচিতে সাংসদের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন অশোকনগর বিধানসভার বিধায়ক ধিমান রায়, অশোকনগর-কল্যাণগড় পুরসভার পুরপ্রধান প্রবোধ সরকার, উপ-পুরপ্রধান সমীর দত্ত সহ অন্যান্য পুরপ্রতিনিধিগণ। এপ্রসঙ্গেই সাংসদ বলেন, বর্তমান রাজ্য সরকার সর্বদা মানুষের পাশে রয়েছে। সমাজের সর্বস্তরের মানুষের জন্য চিন্তা করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। আর মুখ্যমন্ত্রীর দেখানো পথেই তাঁরা কাজ করে চলেন। তাঁর অনুপ্রেরণায় এই বৃদ্ধাশ্রমের নির্মাণ। বৃদ্ধাশ্রম সূত্রে খবর, এইরকম একটি আশ্রয় পেয়ে অত্যন্ত খুশি অসহায় মানুষগুলি। ভবিষ্যতে এমনভাবে যদি কোন মানুষ ফের অসহায় হয়ে পড়ে তাহলে। তাদেরও থাকার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে বলে বৃদ্ধাশ্রম সূত্রে জানা গেছে।

Spread the love

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।